গত দুই মাস ধরে কোভিড-১৯ এর চিকিৎসায় আইভারমেকটিন Ivermectin নিয়ে অসংখ্য খবর আপনাদের চোখে পড়েছে। এই আলোচনার সূত্রপাত হয় অস্ট্রেলিয়ার মোনাশ বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি গবেষণা থেকে। সেখানে দেখা যায় আইভারমেকটিন 48 ঘন্টার মধ্যে জীবকোষ থেকে করোনাভাইরাস নির্মূল করতে সক্ষম। অত্যন্ত আশাব্যঞ্জক তথ্য! কিন্তু ঠিক কী ধরণের কোষ? সেখানে কী পরিমাণ ওষুধ কীভাবে প্রয়োগ করা হয়েছিল? করোনার চিকিৎসায় এই ওষুধ কীভাবে ব্যবহার করা যাবে? এইসব প্রশ্নের উত্তর কি সেই গবেষণায় ছিল? চলুন দেখে যাক এই গবেষণার উৎসে গিয়ে কী জানা যায়।
 
ওষুধ কি রোগীদের চিকিত্সায় ব্যবহার করে দেখা হয়েছে?
গবেষণায় ওষুধ কোন রোগীকে খাওয়ানো হয় নি। টেস্ট টিউবে সেল কালচারে তা প্রয়োগ করা হয়েছে। সেল কালচার হচ্ছে ল্যাবরেটরিতে ব্যবহারের জন্য কৃত্রিমভাবে জন্মানো জীবকোষ। কোন জীবিত প্রাণি থেকে মূল কোষ সংগ্রহ করা হয়। তারপর কৃত্রিমভাবে পুষ্টি, সুনির্দিষ্ট তাপমাত্রা, আর্দ্রতা দিয়ে এবং সব ধরণের দূষণ বা রোগ থেকে দূরে রেখে এর ওপর বিভিন্ন পরীক্ষানিরীক্ষা চালানো হয়।
এই ওষুধের কোন পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া জানা গেছে?
এই গবেষণায় যেহেতু কোন রোগী জড়িত ছিলেন না, পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বিষয়ে কোন তথ্য এখান থেকে পাওয়া সম্ভব নয়।
আইভারমেকটিন কীসের ওষুধ?
আইভারমেকটিন বিভিন্ন পরজীবী ঘটিত রোগ যেমন উকুন, খোস পাঁচড়া এবং কৃমির প্রকোপ দূর করতে ব্যবহার হয়। বিভিন্ন ভাইরাসের বিরুদ্ধে এর কার্যকারিতার কিছু প্রমাণ পাওয়া গেলেও এখনও পর্যন্ত সুনির্দিষ্টভাবে প্রতিষ্ঠিত হয় নি। 1987 সালে মার্ক এই অঅষুধ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে বিনা মূল্যে বিতরণের জন্য দিয়ে দেয়। এত আগে কোন ফার্মা এভাবে ওষুধের সত্ত্ব ছেড়ে দেয়নি। এই ওষুধের অবিষকর্তা 2015 সালে নোবেল পুরস্কার পান। কোভিড 19 না হলেও অন্যান্য রোগের চিকিৎসায় এর ব্যবহার আছে। এটি শ্যাম্পু হিসাবেও পাওয়া যায়।
তাহলে এই গবেষণা আমাদের কী কাজে আসল?
আইভারমেকটিন যেহেতু বাজারে সহজলভ্য একটি ওষুধ যার দাম ও নাগালের ভেতরে। অন্যান্য রোগের চিকিৎসায় জন্য এর ওপর বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষা ইতিমধ্যেই হয়ে গেছে। সুতরাং কাজ অনেকদূর এগিয়ে আছে। রোগীদের ওপর ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল জোরদার করা প্রয়োজন এই গবেষণা আমাদেরকে সেটাই বলছে।
ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল কি হচ্ছে?
গবেষকরা খুবই সুন্দর ভাবে আমাদের দেখিয়েছেন তাদের কাজ কোন পর্যায়ে।
যারা স্ক্যাবো 6 এর কথা প্রচার করছে? স্টক করতে এবং নিজে নিজে সেবন করতে উত্সাহ  দিচ্ছে ?
অনৈতিক।

 

  • Read in English

Leave a Reply

fact-watch