বিকাশ কি করোনাকালীন সময়ে কোনো আর্থিক সহায়তা দিচ্ছে?

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের পর থেকেই অনলাইনে বিভিন্ন সময়ে ভিন্ন ভিন্ন রকমের অর্থ সহযোগিতার প্রস্তাবমূলক চটকদার বিজ্ঞাপন দেখা গিয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশী আলোচিত ছিলো বিকাশ থেকে বিভিন্ন অংকের অর্থ সহযোগিতা। গত সপ্তাহ থেকে “করোনা সমস্যার জন্য বিকাশ সবাইকে দিচ্ছে ৩৫০০ টাকা সাহায্য” শিরোনামে ঠিক এমনি একটি মিথ্যা তথ্য ছড়াচ্ছে একটি চক্র। প্রকৃতপক্ষে বিকাশ এধরণের কোনো অর্থ সাহায্য ঘোষণা করেনি।

গত কয়েক সপ্তাহ ধরে ফেসবুক জুড়ে ভেসে বেড়াচ্ছে একটি ওয়েবলিংক যেটার শিরোনামে বলা হচ্ছে “করোনা সমস্যার জন্য  বিকাশ সবাইকে দিচ্ছে ৩৫০০ টাকা সাহায্য”। বিভিন্ন ছদ্ম আইডি ব্যাবহার করে একটি মহল বিভিন্ন ফেসবুক পোস্টের কমেন্ট সেকশনে ওয়েব লিংকটি কমেন্ট করছেন, যার ক্যাপশনে লিখছেন: “৩৫০০ টাকা করোনা সহায়তা আপনার জন্য!আপনাকে কোনো পিন নম্বর দিতে হবেনা। শুধুমাত্র আপনার বিকাশ নম্বরটি দিয়েই আপনি ৩৫০০ টাকা নিতে পারবেন। করোনা সমস্যা ও দেশের সাধারণ মানুষের কথা বিবেচনা করে ব্রাক ব্যাংক দেশের ৫০ লাখ পরিবারকে ৩৫০০ টাকা করে সহায়তা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আপনি যদি বাংলাদেশের নাগরিক হয়ে থাকেন এবং আপনার একটি সচল বিকাশ একাউন্ট থাকে, তাহলে আপনি ৩৫০০ টাকা নিতে পারবেন আপনার বিকাশ একাউন্টে।”

ছবি: ফেসবুক কমেন্ট

আবার অনেকে পোস্টটি নিজেই শেয়ার করছেন ব্যাক্তিগত অ্যাকাউন্ট এবং ম্যাসেঞ্জারে ইনবক্সে।

 

ছবি: ফেসবুক পোস্ট

 

ছবি: ফেসবুক পোস্ট

 

ওয়েবলিংকে ব্যবহৃত ছবিটি আসলে বিকাশের অফিশিয়াল ফেসবুক পেইজ গত ২রা আগস্ট, ২০২০ তারিখের একটি পোস্ট থেকে নেয়া হয়েছে। পোস্টটি ছিলো ঈদের ছুটিতে বিকাশ অ্যাপ থেকে নিজের নাম্বারে ১২ টাকা রিচার্জ বিকাশ করলেই ১০০% ক্যাশব্যাক অফার।

ছবি: বিকাশের মূল পোস্টে ব্যবহৃত ছবি
পোস্টটির লিংক

লিংকটিতে ক্লিক করলে দেখা যাচ্ছে সেখানে লেখা, “করোনা সমস্যা ও দেশের  সাধারণ মানুষের কথা বিবেচনা করে ব্র্যাক ব্যাংক দেশের ৫০ লাখ পরিবারকে ৩৫০০ টাকা করে সহায়তা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

 

ছবি: ওয়েবসাইটটিতে একটি লিংকে ক্লিক করতে বলা হচ্ছে

 

অনেকেই এই প্রলোভোনে পা দিয়ে লিংকে প্রবেশ করছেন, এবং কোনো টাকা পাচ্ছেন না। এ বিষয়ে বিকাশ একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে “সম্প্রতি ‘৩৫০০ টাকা করোনা সহায়তা’ শিরোনামে এমনই একটি মিথ্যা আহবান জানানো হয়, যা আমাদের নজরে এসেছে। বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের পোস্ট ও কমেন্ট বিভাগে এই লিংক দিয়ে মানুষের মানবিকতার সুযোগ নিয়ে টাকা হাতিয়ে নেয়ার এটি একটি নতুন অপচেষ্টা।

আমরা আমাদের সকল গ্রাহক ও শুভানুধ্যায়ীদের এ ব্যাপারে সতর্ক হবার আহবান জানাচ্ছি। এ ধরনের কোনো উদ্যোগ ব্র্যাক, ব্র্যাক ব্যাংক বা বিকাশের পক্ষ থেকে নেয়া হয়নি এবং এমন কোনো উদ্যোগের সাথে আমরা জড়িত নই। যেকোনো প্রাতিষ্ঠানিক উদ্যোগ সংক্রান্ত খবর আমাদের ওয়েবসাইট, ভেরিফাইড ফেসবুক পেজ এবং প্রাতিষ্ঠানিক ইমেইল-এর মাধ্যমে তা গ্রাহকদের জানিয়ে দেয়া হয়।“

ব্রাকের ফেসবুক ভেরিফাইড পেইজ থেকে প্রকাশিত বিবৃতি

 

ছবি: বিকাশের সাবধানতামূলক বিজ্ঞপ্তি

এভাবে অপরিচিত এবং অনিরাপদ ওয়েবসাইটে প্রবেশ এবং কোনো লিংকে প্রবেশ করা মোটেও নিরাপদ নয় বরং  ঝুকিপূর্ণ। এই বিষয়ে ইউল্যাবের কম্পিউটার সাইন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক নাফিস মনসুর বলেন: “এই ধরণের লিংকে প্রবেশ করার পর সাধারণত প্রেবশকারীর নাম, ইমেইল আইডি, পাসওয়ার্ড সহ বিভিন্ন ব্যাক্তিগত তথ্য চাওয়া হয়। এতে করে নিজের সাইবার নিরাপত্তার সাথে আপোষ করা হয়।”

তথ্যসূত্র

পোস্টটির লিংক
ব্রাকের ফেসবুক ভেরিফাইড পেইজ থেকে প্রকাশিত বিবৃতি

 

আপনি কি এমন কোন খবর দেখেছেন যার সত্যতা যাচাই করা প্রয়োজন?
কোন বিভ্রান্তিকর ছবি/ভিডিও পেয়েছেন?
নেটে ছড়িয়ে পড়া কোন গুজব কি চোখে পড়েছে?

এসবের সত্যতা যাচাই করতে আমাদেরকে জানান।
আমাদেরকে ইমেইল করুনঃ contact@fact-watch.org
অথবা ফেইসবুকে মেসেজ দিনঃ fb.com/search.ulab

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *