মীনা-রাজুর এই ছবিগুলো সম্পাদিত

Published on: June 30, 2024

ইউনিসেফের সহায়তায় নির্মিত সামাজিক সচেতনতামূলক কার্টুন চরিত্র মীনা এবং রাজুর নাম ও ছবি ব্যবহার করে তৈরি করা একটি জন্মনিয়ন্ত্রণ সামগ্রীর প্যাকেটের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। তবে অনুসন্ধানে দেখা যাচ্ছে, ডিজিটাল প্রযুক্তির সাহায্যে মূল প্যাকেটের ছবি ও কথা বিকৃত করে মীনা-রাজুর তথ্য সংযুক্ত করা হয়েছে। সঙ্গত কারণে ফ্যাক্টওয়াচ এ সকল ছবিকে ‘বিকৃত’ সাব্যস্ত করছে।

গুজবের উৎস

ছড়িয়ে পড়া কয়েকটি পোস্ট দেখুন এখানে , এখানে , এখানে , এখানে

ফ্যাক্টওয়াচের অনুসন্ধান

দক্ষিণ এশীয় দেশগুলোতে বিভিন্ন সামাজিক বৈষম্যের বিরুদ্ধে সচেতনতা তৈরি এবং শিশুদের জন্য শিক্ষামূলক একটি অনুষ্ঠান হিসেবে ইউনিসেফের সহায়তায় এই কার্টুন ধারাবাহিকটি নির্মিত হয়েছিল । ১৯৯২ সালে এটি প্রথম প্রচারের পর থেকেই ব্যাপক জনপ্রিয়তা পায় । বর্তমানে প্রতিবছর প্রতিবছর ২৪ সেপ্টেম্বর মীনা দিবস হিসেবেও পালন করা হয়।

যেসকল সচেতনতা মীনা কার্টুনের মাধ্যমে তৈরির চেষ্টা করা হয়েছে তার মধ্যে আছে, বাল্যবিবাহ বন্ধ করা, স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানা নির্মাণ ও ব্যবহারে উৎসাহিত করা, মেয়েদের স্কুলে পাঠানো, কমবয়সী মেয়েদের বিয়ে থেকে স্কুলকে বেশি গুরুত্ব দেওয়া, যৌতুক বন্ধ করা, ছেলে-মেয়ে সমান পুষ্টি ও সুযোগ-সুবিধার দাবিদার, প্রয়োজনীয় ও সমঅধিকার পেলে মেয়েরাও অনেক কিছু হতে পারে তা বোঝানো, শহরের বাসায় বাসায় কাজে সাহায্য করে এমন মেয়েদের প্রতি সুবিচার ও তাদের প্রয়োজনীয় শিক্ষা নিশ্চিত করা ইত্যাদি।

তবে মীনা কার্টুনের কোনো এপিসোডের মাধ্যমে প্রজনন শিক্ষা দেওয়া হয়নি।

আলোচিত ছবিটি বিশ্লেষণ করলে দেখা যাচ্ছে, এখানে প্যাকেটের নিচের অংশে কার্টুনের ৩ টি প্রধান চরিত্র, মীনা, রাজু এবং টিয়াপাখি মিঠুকে চিরাচরিত ভঙ্গিতে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যাচ্ছে। প্যাকেটের সবার উপরের অংশে লেখা রয়েছে, ‘নিরাপদ’ মীনা রাজু কনডম । মীনা রাজুর ছবির উপরের অংশে লেখা রয়েছে ‘পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের সম্পত্তি বিক্রয়ের জন্য নয় ।

এছাড়া ‘পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের সম্পত্তি’ বাক্যটার ঠিক উপরে পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের লোগো দেখা যাচ্ছে।

রিভার্স  ইমেজ সার্চের মাধ্যমে এই ছবিটা অনুসন্ধানে জানা যাচ্ছে যে, পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তর থেকে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে বিনামূল্যে বিতরণের জন্য সরবরাহ করা জন্মনিয়ন্ত্রন সামগ্রীর মধ্যে ‘নিরাপদ’ ব্র্যান্ড নাম যুক্ত একটি কনডম ও রয়েছে। জাগোনিউজ২৪ ডট কম এর এই প্রতিবেদনে নিরাপদ কনডম এর একটি প্যাকেটের ছবিও ছাপানো হয়েছে।

পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের আইইএম ইউনিটের ইউটিউব চ্যানেলেও ‘নিরাপদ কনডম’ এর একটি বিজ্ঞাপন দেখা যাচ্ছে, যেটি ২০২২ সালের সেপ্টেম্বর মাসে আপলোড করা হয়েছিল।

Awesome BD নামের আরেকটি ইউটিউব চ্যানেলে একই পণ্যের ভিন্ন আরেকটি বিজ্ঞাপন দেখা যাচ্ছে। সেখানের বিবরণ অংশ থেকে জানা যাচ্ছে যে নিরাপদ জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি কনডম , এটি একটি নতুন পণ্য, (যা) বাংলাদেশের সকল স্বাস্থ্য কেন্দ্র যেমন কমিউনিটি ক্লিনিক, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং মা ও শিশু স্বাস্থ্য কেন্দ্রে বিনামূল্যে প্রদান করা হয়।

এছাড়া ফেসবুকে আরো একাধিক জায়গায় এই পণ্যের ছবি দেখা যাচ্ছে। যেমন দেখুন এখানে , এখানে

এই ‘নিরাপদ কনডম’ এর ছবির সাথে ফেসবুকে আলোচিত ‘নিরাপদ মীনা রাজু কনডম’ এর সাদৃশ্য দেখা যাচ্ছে। মূল প্যাকেটের ছবিতে মোট ২ জায়গায় সম্পাদনা করা হয়েছে। এগুলো হল-

১। ‘নিরাপদ’ এবং ‘কনডম’ শব্দদ্বয়ের মাঝে ‘মীনা রাজু’ কথাটি যুক্ত করা হয়েছে।

২। একেবারে নিচের অংশে মীনা,রাজু ও মিঠুর ছবিটি জুড়ে দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া প্যাকেটের রঙ কিছুটা সম্পাদনা করে গাড় করা হয়েছে।

                           চিত্র : সম্পাদিত ছবি

                                 চিত্র : মূল ছবি

বাদবাকি সকল কথা ও ডিজাইন অবিকৃত রয়েছে। এমনকি , মীনা ও রাজুর শরীরের পেছনে পূর্বের লেখা ‘সুগন্ধিযুক্ত’ শব্দতির অংশবিশেষ দৃষ্টিগোচর হচ্ছে। এছাড়া প্যাকেটের ডানে ‘১২টি’ কিংবা মাঝের অংশে পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের নাম ও লোগো, কিংবা উপরের অংশে ‘নিরাপদ’ ব্র্যান্ড নামটি হুবহু একই রয়েছে। ফলে এটা নিশ্চিতভাবে বলা যায় যে, নিরাপদ কনডম এর ছবিকেই বিকৃত করে ‘নিরাপদ মীনা রাজু কনডম’ বানিয়ে প্রচার করা হয়েছিল।

এছাড়া, মীনা রাজুর নামযুক্ত কোনো কনডম বা অন্য কোনো জন্মনিয়ন্ত্রণ সামগ্রী অনুসন্ধানে খুজে পাওয়া যায়নি।

এ সকল কারণে ফ্যাক্টওয়াচ ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া এই সকল পোস্টকে ‘বিকৃত’ সাব্যস্ত করছে।

এই নিবন্ধটি ফেসবুকের ফ্যাক্ট-চেকিং প্রোগ্রামের নীতি মেনে লেখা হয়েছে।।
এর উপর ভিত্তি করে ফেসবুক যে ধরণের বিধিনিষেধ আরোপ করতে পারে, সে সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন এখানে
এছাড়া এই নিবন্ধ সম্পর্কে আপনার মূল্যায়ন, সম্পাদনা কিংবা আরোপিত বিধিনিষেধ তুলে নেয়ার জন্য আবেদন করতে এই লিঙ্কের সাহায্য নিন।

কোনো তথ্যের সত্যতা যাচাই করতে আমাদেরকেঃ
ইমেইল করুনঃ contact@factwatch.org
অথবা ফেইসবুকে মেসেজ দিনঃ facebook.com/fwatch.bangladesh