নিহত সংসদ সদস্য আনোয়ারুলকে নিয়ে ভুয়া তথ্য প্রচার

Published on: June 4, 2024

ফেসবুকে যা ছড়িয়েছে: সংসদ সদস্য আনারের গোপনাঙ্গ পাওয়া গেছে শিলাস্তির বাসায়। এমন দাবির সাথে আর টিভির ফটোকার্ডে সংসদ সদস্যের একটি ছবি পোস্ট করা হয়েছে।

ফ্যাক্টওয়াচের সিদ্ধান্ত: দাবিটি বিকৃত। ভারতীয় পুলিশের দাবি অনুযায়ী, সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার কলকাতায় সঞ্জিভা গার্ডেনসের একটি ফ্ল্যাটে খুন হয়েছেন। কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে তাকে। তবে মৃতদেহের খোঁজ পায়নি পুলিশ। মৃতদেহের যেকোনো একটি অংশ উদ্ধার করতে জোর তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে দেশটির পুলিশ। গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী যেখানে আনোয়ারুল খুন হয়ে হয়েছেন সেখানের সেফটি ট্যাংক থেকে কয়েক কেজি মাংস উদ্ধার করা হয়েছে। পুলিশের ধারণা অনুযায়ী এটি সংসদ সদস্যের হতে পারে। ফরেনসিকে তদন্তাধীন রয়েছে বিষয়টি। চূড়ান্ত প্রতিবেদন থেকে পূর্ণ তথ্য পাওয়া যাবে। এদিকে সম্প্রতি আরটিভির ফটোকার্ডে এমপি আনোয়ারুলের শরীরের একাংশ বা গোপনাঙ্গ পাওয়ার যে দাবি করা হয়েছে তা সম্পাদনা করে তৈরি হয়েছে। মূলত, আরটিভির ভিন্ন একটি সংবাদের শিরোনাম বিকৃত করা হয়েছে। তাদের ফটোকার্ডের মতো করে আর একটি ফটোকার্ড তৈরি করা হয়েছে। আরটিভি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে জানাচ্ছে তারা এধরণের কোনো ফটোকার্ড বা সংবাদ প্রকাশ করেনি।

ফেসবুকে প্রচারিত কিছু পোস্ট দেখুন  এখানে, এখানে, এখানে, এখানে এবং এখানে

 

দাবিটি বেশি গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছে কারণ মূল ধারার গণমাধ্যম আর টিভির ফটোকার্ডে তথ্যটি এসেছে। আর টিভি যে ধরণের ফটোকার্ড তৈরি করে তার সাথে ভাইরাল ফটোকার্ডের মিল রয়েছে। তবে আর টিভির ফেসবুক পেজে এবং ওয়েবসাইটে যেয়ে এ ধরণের কোনো সংবাদ পাওয়া যায়নি। অন্য কোনো গণমাধ্যমেও এ জাতীয় কোনো সংবাদ পাওয়া যায়নি। বরং, আর টিভির ফেসবুক পেজে “আন্তর্জাতিক পরিসরে এমপি আনার হত্যা তদন্তের পদক্ষেপ” শিরোনামে প্রকাশিত একটি ফটোকার্ড খুঁজে পাওয়া যায়। ১ জুন ২০২৪ তারিখে সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে। আর টিভির উক্ত ফটোকার্ডে সংসদ সদস্য আনোয়ারুলের যে ছবি ব্যবহার করা হয়েছে ভাইরাল ফটোকার্ডেও ঠিক একই ছবি ব্যবহৃত হয়েছে।

প্রসঙ্গত যে, আর টিভি থেকে প্রকাশিত সংবাদের সাথে ভাইরাল ফটোকার্ড মেলানো হলে দেখা যায়, আর টিভির ফটোকার্ডের আদলে ভাইরাল ফটোকার্ড তৈরি করা হয়েছে। মূল সংবাদটি পরবর্তীতে সম্পাদনার মাধ্যমে বিকৃত করা হয়েছে। একই ছবি ব্যবহার করে হলেও ভিন্ন শিরোনাম দেওয়া হয়েছে। আর তা দেখে প্রাথমিক অবস্থায় মনে হয়েছে এমন সংবাদ আরটিভি থেকে প্রকাশিত হয়েছে।

লক্ষণীয় যে, আর টিভির ডিজাইনে যেই ফটোকার্ড ভাইরাল হয়েছে তা নিয়ে আর টিভি থেকে বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিটি হলো “আরটিভির নামে ছড়ানো এই ছবিটি নকল, আমাদের তৈরি নয় । বিভ্রান্তি এড়াতে আমাদের ফেসবুক পেজ ও অনলাইনের সঙ্গে থাকুন”।

উল্লেখ্য, শুরু থেকে সংসদ সদস্য আনারের ইস্যুটি নিয়ে বিভিন্ন ভুল তথ্য প্রচারিত হচ্ছে। গণমাধ্যমে সংবাদ প্রচার করে জানানো হয়েছিল এমপি আনোয়ারুলের মরদেহ কলকাতার ফ্ল্যাটে পাওয়া গেছে। পরবর্তীতে গণমাধ্যমে প্রচারিত অন্যান্য সংবাদ থেকে জানা গেলো সেটি ভূয়া। কিছু আলামত দেখে প্রাথমিক অবস্থায় পুলিশের ধারণা ছিল এমপি আনোয়ারুল খুন হয়েছেন। খুন করার পরে তাকে টুকরো টুকরো করা হয়েছে। টুকরো টুকরো মাংস বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। খুনের সাথে জড়িত এমন সন্দেহে বাংলাদেশ এবং ভারতে কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। গ্রেপ্তারকৃতদের বক্তব্য অনুযায়ী অনুসন্ধান চলছে। বাংলাদেশের গোয়েন্দা দল ভারতে গিয়েছিল তদন্তের কাজে। কাজ শেষে দেশে ফিরে তারা নেপালের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছে।

তাই সংসদ সদস্য আনোয়ারুল হত্যা ঘটনা এখনো পর্যন্ত অমীমাংসিত একটি বিষয়।

সুতরাং, “সংসদ সদস্য আনারের গোপনাঙ্গ পাওয়া গেছে শিলাস্তির বাসায়।” এমন দাবি ভিত্তিহীন এবং আরটিভির নামে প্রচারিত ফটোকার্ডটি সম্পাদিত।

এই নিবন্ধটি ফেসবুকের ফ্যাক্ট-চেকিং প্রোগ্রামের নীতি মেনে লেখা হয়েছে।।
এর উপর ভিত্তি করে ফেসবুক যে ধরণের বিধিনিষেধ আরোপ করতে পারে, সে সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন এখানে
এছাড়া এই নিবন্ধ সম্পর্কে আপনার মূল্যায়ন, সম্পাদনা কিংবা আরোপিত বিধিনিষেধ তুলে নেয়ার জন্য আবেদন করতে এই লিঙ্কের সাহায্য নিন।

কোনো তথ্যের সত্যতা যাচাই করতে আমাদেরকেঃ
ইমেইল করুনঃ contact@factwatch.org
অথবা ফেইসবুকে মেসেজ দিনঃ facebook.com/fwatch.bangladesh