গাড়ির তেলের ভরা ট্যাংক কি গরমে বিস্ফোরিত হতে পারে?

গত কয়েক বছর ধরেই অনলাইনে ঘুরে বেড়াচ্ছে গাড়ির তেলের ট্যাংক নিয়ে একটি হুশিয়ারি। সম্প্রতি আবারও বার্তা আদানপ্রদানের মোবাইল অ্যাপ হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ইংরেজি এই হুশিয়ারির বাংলা করলে হয়,“কয়েকদিন পর তাপমাত্রা আরও বাড়লে আপনার গাড়ির ট্যাংক পূর্ণ করে পেট্রোল ভরবেন না। এতে করে ট্যাংকে বিস্ফোরণ ঘটতে পারে।  ট্যাংকের অর্ধেকটা  পেট্রোলে ভরে বাকি অর্ধেক বাতাসের জন্যে খালি রাখুন।” বার্তার শেষে বলা আছে শেয়ার করে বার্তাটিকে প্রিয়জনদের কাছে ছড়িয়ে দেবার কথা। সতর্কবার্তার নিচে বাম পাশে পাকিস্তান স্টেট অয়েল (পিএসও)-র একটি লোগো। তথ্য যাচাই বিষয়ক জনপ্রিয় ওয়েবসাইট স্নুপসএর প্রতিবেদন অনুযায়ী, বার্তাটি প্রথম ছড়ানো শুরু হয় ২০১১ সালে।

জনপ্রিয় ওয়েবসাইট দ্যা ইঞ্জিনিয়ারিং টুলবক্সএ উল্লেখ করা রয়েছে বিভিন্ন তেল এবং গ্যাসকে পোড়ানোর নূন্যতম তাপমাত্রা। তাদের ওয়েবসাইট ঘেঁটে পাওয়া গিয়েছে পাকিস্তান স্টেট অয়েলের ফেসবুক পাতায় প্রকাশিত বিবৃতির সত্যতা। গ্যাসোলিন এবং পেট্রোলের সিলিন্ডারে আগুন ছাড়া বিস্ফোরণ ঘটানোর জন্যে প্রয়োজন কমপক্ষে ২৪৬-২৮০ ডিগ্রি সেলসিয়াস (৪৭৫-৫৩৬  ডিগ্রি ফারেনহাইট) তাপমাত্রার। কোনো জ্বালানিতে আগুন ছাড়া বিস্ফোরণ ঘটানোর এই নূন্যতম তাপমাত্রাকে বলা হয় “ফ্ল্যাশ পয়েন্ট”।

গাড়ির ভেতরে বা বাইরে এই বিপুল তাপমাত্রা তৈরি হওয়াটা অসম্ভব একটা ব্যাপার। গিনেসবুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে এখন পর্যন্ত পৃথিবীর সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৫৬.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। গ্যাসোলিন এবং পেট্রোলের ফ্ল্যাশ পয়েন্ট এযাবৎকাল পর্যন্ত রেকর্ড করা পৃথিবীর সর্বোচ্চ তাপমাত্রারও প্রায় পাঁচগুণ!

সকল তথ্য ও প্রমাণ বিশ্লেষণের পর ফ্যাক্ট-ওয়াচ এই সিদ্ধান্তে এসেছে যে তেলের ট্যাংক আপনাআপনি বিস্ফোরিত হবার মতন পর্যাপ্ত তাপমাত্রা রাস্তায় বা গাড়ির গ্যারেজের মত খোলা জায়গায় আপনাআপনি তৈরি হওয়াটা প্রায় অসম্ভব একটি ব্যাপার। গরমকালে তেলের ট্যাংক বিস্ফোরিত হবার দাবিটি পুরোপুরি মিথ্যা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *